anuradha1311

Smile! You’re at the best WordPress.com site ever

Archive for the month “সেপ্টেম্বর, 2012”

To Abhijit With Love

On your happy birthday, I pray to God,
Let your life be smooth, Oh! My Lord,
Let Him give you compassion and empathy
For those who need your sympathy.
May God grant you a trouble free future
Let it be lighted with thousand computers.
Be always agile and overcome physical hindrances,
So that your coming days will have no interference.
Enjoy every moment of life given to you by Him,
Don’t forget to pay Him back with your dream.
Dreams are not dreamt while you sleep,
Dreams are those which take away your sleep.

Anuradha Gupta
Delhi 16.9.2012

Advertisements

আকাশে আজ রঙের খেলা

নীল আকাশে সাদা মেঘের ভেলা ছিল দুপুর দুটোয় 

ভাবলাম ভেসে যাব সেই ভেলা করে অচিনপুরে –

কিন্তু বাদ সাধল ভাতঘুম — একটু মাত্র চোখ দুটো লেগেছে

ঘড়ির কাটা জানায় বেলা চারটে বাজে – হাঁটার সময় ।

 

কি আর করি বেড়িয়ে পড়ি গায়ে দিয়ে শাল –

আকাশে ঝিলিক মারছে সূয্যিমামা সোনালী নরম গরম আলো-

কিন্তু দমকা হাওয়ায় শাল গেল হঠাৎ উড়ে

পিছনে তাকিয়ে দেখি এক আঁধার ধূসর কম্বল গায়ে আকাশ ।

 

ওমা সেকি , সামনে বাঁয়ের দিকে একটু ঘোলাটে আকাশ

সূয্যিমামা কোথায় মারল ডুব কে জানে

আর ডানদিকে stratus মেঘের সমারোহ

ছাতা ত’ একটাই, পারবে দুটো মাথা বাঁচাতে ?

 

কি অপূর্ব খেলা আজ আকাশে, কি রঙের ঘনঘটা 

মেঘের আড়াল দিয়ে লুকোচুরি সূয্যিমামার, ব্যস্ত নিয়ে তার রথ

পশ্চিমের আকাশে এই রঙ বেরঙের খেলা দেখে

পূবের আকাশ ছাই রঙের মুখ নিয়ে থমথমে, গম্ভীর ।

 

হাঁটতে হাঁটতে মনটা হয়ে যায় শান্ত, মাথাটা যায় ঝুঁকে

গতি যায় বেড়ে কারন বৃষ্টির আশঙ্কায় সে শঙ্কিত

অথচ তার পরে, দু ঘণ্টা চলে গেল, কই –

আকাশের অভিমান ত’ ঝরে পড়ল না পৃথিবীর পরে ?

 

হে পরমেশ্বর, দু চোখ ভরে আজ দেখলাম তোমার রঙের খেলা

যামিনী বা অবনীন্দ্র তোমার মত গুরু পেয়ে কি দারুন কৃতজঞ

আমি এক অতি নগন্যা নারী, সাধারণ মেয়ে

প্রণাম করি বার বার এই সৃষটির অতি নিপুণ স্রষটাকে ।

অনুরাধা গুপ্তা ব্যাঙালোর ২/৮/১২

মানুষ

কত শত জন্মের পরে নাকি মনুষ্য জন্ম পাওয়া যায় –
আবার সেই মনুষ্য জন্মের পরজন্ম যে মানুষ হবে তার নেই কোন নিশ্চিত
অবশ্য এ সবই তখন অকাট্য যুক্তি হবে,যখন পরজন্মে কেউ বিশ্বাস করবে।
তাই প্রতিপদে আগামী দিনের কথা ভাবার অপেক্ষা রাখে ।

তাই আজকের দিন নিরধারণ করবে আমার কাল হবে কেমন-
মেঘে ঢাকা তারার মতন নাকি হংসবলাকার পাখার মতন-
যদি মেঘে ঢাকা তারা হয় তবে তার থেকে আকাশ ফুঁড়ে কি করে বেরোব ?
সে চিন্তা অবশ্য এখন, বা আজ করবার দরকার নেই।

যদি হতে চাই হংসবলাকার পাখা, সুনীল আকাশে উড্ডিয়ান
যদি হতে চাই আলো ঝলমলে নরম নীল দিগন্তের মত সুদূর-
প্রসারিত করতে হবে আমার এ ক্ষুদ্র হৃদয়
তীক্ষ্ণ বুদ্ধি দিয়ে ফালা ফালা করে কেটে মায়ার বাঁধন ।

“কে তব কান্তা ? কস্তে পুত্র” কথা মনে করতে হবে বারবার
তুমি কি জায়া না জননী কিম্বা পিতা বা পুত্র
সব সম্পর্ক ছিন্ন করে মনে করতে হবে তুমি তাদেরই একজন
যাকে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন পরমেশ্বর দিয়ে বিচারবুদ্ধি ।

পরস্পরের প্রতি থাকুক গভীর প্রেম, সহানুভূতি
অন্যের দুখে দুখী হয়ে ভাগ করে নিয়ে তার দুখের বোঝা
স্বার্থপরতা বলি দিয়ে হতে হবে উদার মনষ্ক
তবেই পাবে তুমি মানুষের সার্থকতা ।

আজ অন্তিম লগনে এসে ভাবি একা একা –
বাকি কটা দিন যেন রঙিন হয় তাঁর তুলির ছোঁয়ায়
ভেসে যাক সব দীনতা – সুন্দর শান্ত মহাসাগরের তরঙ্গ
লাগুক মনের গভীরে, নিয়ে চলুক সেই অসীম পারাবারের ওপারে ।।

অনুরাধা গুপ্তা
ব্যাঙ্গালোর ১০/৮/১২

Post Navigation